Change privacy settings
শিক্ষা

বিদেশে ক্যারিয়ার গড়তে চান ৩১.৭% শিক্ষার্থী, সরকারি চাকরিতে

উন্নত ক্যারিয়ার গড়তে শিক্ষার্থীদের প্রায় ৩১ দশমিক ৭ শতাংশই উচ্চ শিক্ষার জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন, এছাড়াও ২৯.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী ক্যারিয়ার হিসেবে সরকারি চাকরির স্বপ্ন দেখছেন। তবে শিক্ষা জীবনের মাঝামাঝিতে এসেও এখনও নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে কিছুই ভাবছেন না প্রায় ২২ শতাংশ শিক্ষার্থী।

চলতি বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩০ মে পর্যন্ত  সারা দেশের ৮৮টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ১৫৭০ সংখ্যক শিক্ষার্থীর ওপর পরিচালিত একটি জরিপে এমন তথ্য উঠে এসেছে। জরিপটি পরিচালনা করেছে বেসরকারি সংস্থা আঁচল ফাউন্ডেশন।

শুক্রবার (৭ জুন) আঁচল ফাউন্ডেশন আয়োজিত এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ‘বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতির কারণ’ শিরোনামে জরিপের তথ্য তুলে ধরা হয়।

জরিপের প্রতিবেদনে বলা হয়, আঁচল ফাউন্ডেশন শিক্ষার্থীদের কাছে তাদের ক্যারিয়ার ভাবনা সম্পর্কে জানতে চেয়েছিলো। কিন্তু তাদের সাথে কথা বলে উঠে এসেছে বিভিন্ন চমকপ্রদ তথ্য। জরিপে প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে ৩১.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী উচ্চ শিক্ষার জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন, ২৯.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী ক্যারিয়ার হিসেবে সরকারি চাকরি করতে চান, ৯.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী ব্যবসা বা উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন, মাত্র ৭.১ শতাংশ শিক্ষার্থী বেসরকারি চাকরি করতে চান। এছাড়া বাকি শিক্ষার্থীরা এখনো কোনোরূপ ক্যারিয়ার ভাবনা ঠিক করেনি যা মোট শিক্ষার্থীর প্রায় ২২ শতাংশ।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশুনার পরিবেশ নিয়ে কতটুকু সন্তুষ্ট এই প্রশ্ন ছিল সকলের কাছে। জরিপে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষার পরিবেশ নিয়ে পুরোপুরি অসন্তুষ্ট ৩৩.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী, মোটামুটি সন্তুষ্ট ৫৮.১ শতাংশ এবং পুরোপুরি সন্তুষ্ট মাত্র ৮.৪ শতাংশ। পড়াশুনার পরিবেশ নিয়ে অসন্তুষ্টি হওয়া পরবর্তীতে বিভিন্ন ধরনের মানসিক সমস্যা তৈরি করতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা মতামত দিয়েছেন।

ক্যারিয়ার নিয়ে হতাশা : ৫২.৪ শতাংশের মাথায় আত্মহত্যা চিন্তা

এমনকি জরিপে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৫২.৪ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তাদের মাথায় আত্মহত্যা চিন্তা এসেছে এবং সে সকল শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা ভাবনার পেছনে বেশ কিছু কারণ উঠে এসেছে। এর মধ্যে প্রধান কারণ হলো শিক্ষার্থীদের ক্যারিয়ার নিয়ে হতাশা।

এসকল শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৩০ শতাংশ ক্যারিয়ার নিয়ে হতাশায়, ১৬.২ শতাংশ বাবা-মায়ের সাথে অভিমানের ফলে, ৯.৭ শতাংশ প্রেমঘটিত বিষয়ে, ৯ শতাংশ অর্থনৈতিক সমস্যাগ্রস্ত হয়ে, অন্যরা তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করায় ৪.৩ শতাংশ এবং ৩০.৮ শতাংশ শিক্ষার্থী অন্যান্য বিভিন্ন কারণে আত্মহত্যা করার চিন্তা এসেছে বলে জানিয়েছেন।

হতাশায় এগিয়ে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে হতাশার উপসর্গ নিয়ে তুলনা করতে গিয়ে দেখা যায়, সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে হতাশার উপসর্গ অনুভব করার হার বেশি। ৮৩.৪ শতাংশ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন তারা এই ধরনের বিষণ্নতার  উপসর্গগুলোর মুখোমুখি হয়েছেন। বাকি ১৬.৬ শতাংশ জানিয়েছেন তাদের  মাঝে হতাশার উপসর্গ দেখা যায় নি। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে হতাশার চিত্র তুলনামূলক কম। ৭৯.৯ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তারা হতাশার উপসর্গগুলো অনুভব করেছেন। অন্যদিকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬১.৩ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তারা এই ধরনের উপসর্গের মধ্য দিয়ে গিয়েছেন।

বিষণ্নতার কারণসমূহ

শিক্ষার্থীদের থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে জরিপে ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীদের হতাশার বিভিন্ন কারণ উঠে এসেছে। মোট শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৫৫.০০ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তারা ভবিষ্যৎ ক্যারিয়ার নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভুগছেন। বিভিন্ন কারণে নিজেকে অন্যদের সাথে তুলনা করার কারণে হতাশায় ভুগছেন বলে জানিয়েছেন মোট শিক্ষার্থীর ১৬.২ শতাংশ। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা নিয়ে ৯.৪ শতাংশ, হল বা আবাসিক পরিবেশ নিয়ে ৯.০০ শতাংশ, সহপাঠী বা শিক্ষক কর্তৃক বুলিং এর কারণে ৫.৩ শতাংশ ।

এবং উপর্যুক্ত  সবগুলো কারণের জন্য ১.৬ শতাংশ শিক্ষার্থী হতাশাগ্রস্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন। এছাড়াও আরো ৩.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী অন্যান্য কারণে হতাশায় ভুগছেন।

ক্যাম্পাসে বুলিং ও যৌন নিগ্রহ

ক্যাম্পাস জীবন বলতেই আমাদের চোখের সামনে ভেসে উঠে আড্ডাবাজি, খুঁনসুটি, হৈ-হুল্লোড়; এক কথায় প্রাণবন্ত মুহূর্তের চিত্রপট। কিন্তু এই সুখস্মৃতির মুহূর্তগুলোর পাশাপাশি ক্যাম্পাস জীবনে হতাশার গল্পও থাকে অনেকের। সহপাঠী, সিনিয়র কিংবা শিক্ষক কর্তৃক ক্যাম্পাসে শারীরিক বা মানসিকভাবে হয়রানির শিকার হওয়াই ক্যাম্পাস বুলিং।

জরিপে দেখা গেছে, অংশগ্রহণকারী মোট শিক্ষার্থীর মধ্যে বিভিন্ন ধরনের হয়রানির শিকার হয়েছেন ৩১.১ শতাংশ শিক্ষার্থী। যার মাঝে বুলিংয়ের শিকার হয়েছেন ১৫.৯ শতাংশ, র‍্যাগিং এর শিকার হয়েছেন ১৩.৪ শতাংশ, যৌন  হয়রানির শিকার হয়েছেন ১.৮ শতাংশ এবং কোনো ধরনের হয়রানির শিকার হননি ৬৮.৯ শতাংশ। বিশেষজ্ঞদের মতে বুলিং, র‍্যাগিং ও যৌন হয়রানির তিক্ততা যখন কোনো শিক্ষার্থীকে গ্রাস করে তখন সে নিজেকে যাবতীয় সকল কিছু থেকে গুটিয়ে নেয় এবং ধীরে ধীরে বিষণ্নতার দিকে ধাবিত হয়।

হয়রানিতে এগিয়ে সহপাঠী ও সিনিয়ররা

বিভিন্ন ধরনের হয়রানিতে আক্রান্ত হওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে সহপাঠী বা সিনিয়র দ্বারা হয়রানির শিকার হয়েছেন ৮৫.৫ শতাংশ, শিক্ষক কর্তৃক ৭.৬ শতাংশ , স্টাফ কর্তৃক ১.২ শতাংশ এবং অন্যান্যদের দ্বারা ৫.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী হয়রানির শিকার হয়েছেন। হয়রানির ফলে মানসিক স্বাস্থ্যের উপর ব্যাপক প্রভাব পড়েছে ৪২.৬ শতাংশ শিক্ষার্থীর, মোটামুটি প্রভাব পড়েছে  ৪৮.৬ শতাংশ শিক্ষার্থীর এবং কোনোরূপ প্রভাব পড়েনি ৮.৮ শতাংশ শিক্ষার্থীর।

হলের পরিবেশও প্রভাব ফেলছে বিষণ্নতায়

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে অনেকেই হল বা ডর্মেটরিতে অবস্থান করে। হলে থাকা-খাওয়া ও পড়াশুনার পরিবেশও একজন শিক্ষার্থীর মানসিক স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব বিস্তার করে। হলের পরিবেশ  নিয়ে সন্তুষ্টি-অসন্তুষ্টির ক্ষেত্রে ৩৯.৩ শতাংশ জানিয়েছেন তারা পুরোপুরি অসন্তুষ্ট। সন্তুষ্টির কথা বলেছেন মাত্র ১০.০০ শতাংশ শিক্ষার্থী। বাকিরা জানিয়েছেন তারা মোটামুটি সন্তুষ্ট।

অসন্তুষ্টির কারণ হিসেবে জরিপে দেখা গেছে,  ৯.৯ শতাংশ শিক্ষার্থী থাকার পরিবেশকে দায়ী করেছেন। অনুন্নত খাবারকে দায়ী করেছেন ৭.৮ শতাংশ শিক্ষার্থী। রিডিং রুম বা গ্রন্থাগারের সংকট মনে করছেন ৩.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী এবং সবগুলো কারণকেই দায়ী করছেন ৬৮.২ শতাংশ শিক্ষার্থী। এছাড়াও ১০.৪ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তারা অন্যান্য কারণকে অসন্তুষ্টির জন্য দায়ী করছেন। ৭০.১ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন হলের পরিবেশ তাদের মানসিক স্বাস্থ্যে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল সাইকোলজি বিভাগের অধ্যাপক কামাল উদ্দীন আহমেদ চৌধুরী, ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের ডিপার্টমেন্ট অব সোশাল সায়েন্সেস অ্যান্ড হিউম্যানিটিজ বিভাগের সিনিয়র লেকচারার ওবায়দুল্লাহ আল মারজুক, এডিডি ইন্টারন্যাশনালের কমিউনিটি ভিত্তিক মানসিক স্বাস্থ্য প্রকল্পের ব্যবস্থাপক আবদুল্লাহ আল হারুন এবং আঁচল ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি তানসেন রোজ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Discover more from ঝিনেদা টিভি

Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

Continue reading